×
  • নজরে
  • ছবি
  • ভিডিও
  • আমরা

  • আমরা কেন এবং কী –তা না জানলেই বা কী?

    4thPillars ব্যুরো | 18-03-2020

    স্বাগতা দাশগুপ্ত

    মানবসভ্যতার সৃষ্টি, ব্যপ্তি ও ভবিষ্যৎ নিয়ে একটি গবেষণামূলক বই "সেপিয়েন্স'। লিখেছেন ইউভাল নোয়া হারারি। বইটি পড়লেন স্বাগতা দাশগুপ্ত

     

    আমরা কেন এবং কী

    ভাবতে ভাবতে ভাবতে ভাবতে যদি ভাবি, "What games did our Stone Age ancestors play in the arena of history?' "What did they do when they woke up in the morning? What did they eat for breakfast – and lunch? What were their societies like? Did they have monogamous relationship and nuclear families? Did they have ceremonies, moral codes, sports contests and religious rituals? Did they fight wars?...' মাত্র তিরিশ হাজার বছর আগের মানুষের কথা মানব জাতির বয়সের নিরিখে মাত্র-ই বটেমানব(Human) কথার অর্থ এখানে ব্যাপক আমাদের সমস্ত আদিম ভাইবোনদের কথাই বলা হচ্ছেনিয়ান্ডারথাল, হোমো ইরেক্টাস, হোমো সোলেন্সিস সবাইকী বিরাট পরিবার আমাদের! যার নাম "great apes'

    আমাদের সবচেয়ে নিকট আত্মীয়রা হলেন শিম্পাঞ্জি, গরিলা আর ওরাংওটাংএর মধ্যে সবচেয়ে নিকট শিম্পাঞ্জিরাষাট লক্ষ বছর আগে, এই পরিবারের একজন মায়ের দুটি কন্যা ছিলএক কন্যা জন্ম দিলেন শিম্পাঞ্জিদেরআরেকজন আমাদের(humans) সব্বার জননীআমাদের সবারই একটা মিল-– বিরাট ব্রেন(brain)অন্য প্রাণীদের চেয়ে অনেকটাই বড়কিন্তু বিষয় হল "a jumbo brain is a jumbo drain on the body' অর্থাৎ বড় ব্রেনের খরচও বেশিহোমো সেপিয়েন্সের ব্রেনের ওজন শরীরের ২-৩ শতাংশকিন্তু তার এনার্জি দরকার ২৫ শতাংশ, শরীর যখন বিশ্রামে আছে তখনও আদিম মানুষদের এই বড় ব্রেন বেশ বিপদে ফেলেছিল তাদেরকারণ এত এনার্জি দরকার যে সারাদিন তারা খাবারের খোঁজে কাটাতেনআর তাদের পেশি শিথিল হয়ে পড়ছিলনিয়ান্ডারথালদের নাকি আরও বড় ব্রেন ছিলযাই হোক, সে অনেক আগের কথালক্ষ লক্ষ বছর ধরে নানা রকম অভিযোজন হয়ে হয়ে কীকরে যে আমরা, হোমো সেপিয়েন্সরা সব্বাইকে হারিয়ে শ্রেষ্ঠ জীব(!) হয়ে উঠলাম সে এক রহস্যহাজার দশেক বছর ধরে আমরা শ্রেষ্ঠমাত্র হাজার দশেকতার আগে লাখ লাখ বছর বড় ব্রেন নিয়েও কিন্তু অন্যান্য প্রাণীর আক্রমণ থেকে আমরা পালিয়ে বেঁচেছিফুড চেনের(food chain) মাঝামাঝি ছিল আমাদের অবস্থানমাত্র একলক্ষ বছর হল, হোমো সেপিয়েন্সের উদ্ভবের পরে আমরা ফুড চেনের একেবারে ওপরে লাফ দিয়ে উঠেছি এখানে লক্ষণীয় যে আমরা এক লাফে ফুড চেনের মাথায় উঠেছি, ধাপে ধাপে নয়এই ঘটনা আমাদের নিজেদেরকে জানার বোঝার জন্য খুব জরুরিঅন্যান্য যেসব প্রাণী ফুড চেনের মাথায় আছেন, যেমন সিংহ, হাঙ্গর, হায়না এরা একদিনে সেই অবস্থানে আসেননি, লক্ষ লক্ষ বছর ধরে অভিযোজন হয়ে এসেছেনতুলনায় আমরা এত তাড়াতাড়ি ওপরে উঠলাম যে ইকোসিস্টেমের(ecosystem) মানিয়ে নেওয়ার সময় খুব কম ছিলআমরাও তেমন মানিয়ে নিতে পারিনিফুড চেনের ওপরে থাকা অন্য প্রাণীদের দীর্ঘ বছরের প্রভুত্ব তাদের আত্মবিশ্বাস যুগিয়েছেঅন্যদিকে আমরা হয়ে দাঁড়িয়েছি অনেকটা "banana-republic dictator'-এর মতোমাত্র কয়েক হাজার বছর আগেও গৌণ প্রাণী হয়ে থাকার অভিজ্ঞতা আমাদের মনকে নিজেদের অবস্থান বিষয়ে ভয় আর উদ্বেগে ভরিয়ে দিয়েছে এমনই যে আমরা হয়ে উঠেছি নিষ্ঠুর আর ভয়ংকরপৃথিবীব্যাপী যুদ্ধ, হত্যা, শোষণের উৎস আমাদের এই অলৌকিক লাফ

     

    • লক্ষ লক্ষ বছর ধরে নানা রকম অভিযোজন হয়ে হয়ে কী করে যে আমরা, হোমো সেপিয়েন্সরা সব্বাইকে হারিয়ে শ্রেষ্ঠ জীব(!) হয়ে উঠলাম সে এক রহস্য।

    • হাজার দশেক বছর ধরে আমরা শ্রেষ্ঠ। মাত্র হাজার দশেক।

    • পৃথিবীব্যাপী যুদ্ধ, হত্যা, শোষণের উৎস আমাদের এই অলৌকিক লাফ।

    • বিগত সত্তর হাজার থেকে তিরিশ হাজার বছরের মধ্যে হোমো সেপিয়েন্সের চিন্তাভাবনার নতুন জগৎ তৈরি হল, যাকে আমরা বলছি "cognitive revolution'

     

    বিগত সত্তর হাজার থেকে তিরিশ হাজার বছরের মধ্যে হোমো সেপিয়েন্সের চিন্তাভাবনার নতুন জগৎ তৈরি হল, যাকে আমরা বলছি "cognitive revolution'জিনের কিছু আকস্মিক পরিবর্তনকে এর কারণ হিসেবে ধরা হয়কেন যে সেপিয়েন্সেরই এমনটা হল, আমাদের অন্য ভাইবোনেদের, ধরা যাক নিয়ান্ডারথালদের না হয়ে! আমাদের ভাগ্য, আর কী? ঘটনাটা নাকি সম্পূর্ণ আকস্মিককিন্তু এর ফলে যা হল, তা মারাত্মকআমরা তৈরি করতে সক্ষম হলাম আমাদের সম্পূর্ণ কাল্পনিক সত্যের জগৎ, যা সবার চেয়ে আলাদাআমাদের নিকট আত্মীয়দের থেকেওসে-জগতে স্থান পেল সম্পূর্ণ অস্তিত্ববিহীন জিনিসপত্র, শরীরী অস্তিত্বহীনকিন্তু আমরা তাতেই বিশ্বাস করলামসে-বিশ্বাস এমনি মজবুত যে তা লক্ষ লক্ষ মানুষকে একত্রিত করলএকটা বাঁদরের থেকে কখনোই একটা কলা ছিনিয়ে নেওয়া যাবে না, এর বিনিময়ে সে মৃত্যুর পরে স্বর্গে গিয়ে অনেক কলা পাবে এই আশ্বাস দিয়েকিন্তু মানুষের থেকে নেওয়া যায়এই কল্পিত সত্যে বিশ্বাস করার ক্ষমতাই মানুষকে জোট বাঁধতে শেখালনানা মিথ তারা বিশ্বাস করলেনসবাই মিলে, একসাথেবাইবেলে বর্নিত মানুষের সৃষ্টির গল্প, বা নেটিভ অস্ট্রেলিয়ানদের স্বপ্নের নানা মিথ থেকে শুরু করে আধুনিক রাষ্ট্রের জাতীয়তাবাদী মিথএকইরকম বিশ্বাস থেকে একসাথে কাজ করল মানুষ, বিরাট সংখ্যক মানুষধর্মবিশ্বাস, সংস্কারে বিশ্বাস, মানুষের তৈরি আইন-কানুনে বিশ্বাস ইত্যাদি ইত্যাদিগোষ্ঠী, সমাজ, রাষ্ট্র সব তৈরি হলযা অন্য কোনো প্রাণীর হল নাহোমো সেপিয়েন্স শ্রেষ্ঠ জীব হলএরপর কী? এই জাতির ভবিষ্যত কী?

     

    এই সমস্ত নিয়ে যিনি ভেবেছেন, গবেষণা করেছেন আর চমৎকারভাবে লিখেছেন, তাঁর নাম ইউভাল নোয়া হারারি(Yuval Noah Harari)বইয়ের নাম সেপিয়েন্স(Sapiens)এই সিরিজে তাঁর আরও দুটো বই আছেকালের গর্ভে আমরা কোথায় কেমন ছিলাম, আছি আর থাকব তা জানতে-বুঝতে এ-বই মহা দরকারিআমার পড়া অন্যতম শ্রেষ্ঠ বই – "সেপিয়েন্স'

     


    4thpillars ব্যুরো - এর অন্যান্য লেখা


    ইংরেজি নতুন বছর সম্ভাবনার, প্রতিকূলতারও বটে।

    লুপ্ত দুই হাতের বয়ান

    বাংলা ও বাঙালির বৌদ্ধিক চর্চার অন্যতম কেন্দ্র কলেজ স্ট্রিট কফি হাউসেও গেরুয়া বাহিনীর হামলা।

    সর্ষের মধ্যে ভূত নয়, কম্পিউটারের ভুয়ো ফাইলে ‘আর্বান নকশাল’ খুঁজছে সরকার।

    আত্মহত্যার আগে একা অন্ধকার ঘরে স্বীকারক্তি রেকর্ড করার সিদ্ধান্ত নেয় এক ব্যক্তি। কেন?

    এই প্রথম একটা রূপালী রেখা দেখা যাচ্ছে।

    আমরা কেন এবং কী –তা না জানলেই বা কী?-4thpillars

    Subscribe to our notification

    Click to Send Notification button to get the latest news, updates (No email required).

    Not Interested